ছাত্র-কে মেরে আঙুল ফাটিয়ে দেওয়ার অভিযোগ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। ক্ষোভে স্কুলে গিয়ে বিক্ষোভ অভিভাবকদের। শিলিগুড়ি প্রাথমিক বালক বিদ্যালয়ে ঘটনাটি ঘটেছে। অভিযোগ গতকাল স্কুলের প্রধান শিক্ষক কোন কারণ ছাড়াই দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র আয়ুষ দে-কে মারধর ধরে। বেত দিয়ে বেধড়ক মারায় তার ডান হাতের এক আঙুলে ফেটে যায়। উঠে যায় আঙুলের নখ। বাড়িতে গিয়ে বললে আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হবে বলা হয় বলে অভিযোগ। এরপরেই ওই ছাত্র বাড়িতে গিয়ে পুরো ঘটনার কথা জানায়। এরপর আজ সকালে ওই ছাত্রের মা ও আরও বেশকিছু অভিভাবক স্কুলের সামনে জমায়েত হন। স্কুলের সামনে বিক্ষোভ দেখিয়ে প্রধান শিক্ষকের সাথে দেখা করেন তারা। যদিও নিজের ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চান প্রধান শিক্ষক।
তবে শিক্ষকের ভূমিকা নিয়ে ক্ষোভ দেখিয়ে ছাত্রের মা প্রীতি দে জানান, যেভাবে মারা হয়েছে তা অনৈতিক। বেত দিয়ে মারার পাশাপাশি লাথিও মারা হয়েছে। ছাত্র বদমাশি করতেই পারে তবে তার জন্য এমনভাবে মারা উচিত না।
যদিও প্রধান শিক্ষক সুশীল চক্রবর্তী বলেন, স্কুলে ৬০০ এর উপরে ছাত্র রয়েছে। গতকাল ওই ছাত্র খুব বদমাশি করছিল। তাই বেত দিয়ে সামান্য মারা হয়েছে। কিন্তু লাথি মারা হয়নি।