বোর্ড গঠনে তপ্ত ফুরফুরা, পুলিশকে ‘বাঁদরামি ছুটিয়ে দেওয়ার’ হুমকি নওশাদের,

বোর্ড গঠনে তপ্ত ফুরফুরা, পুলিশকে ‘বাঁদরামি ছুটিয়ে দেওয়ার’ হুমকি নওশাদের, হুগলির জাঙ্গিপাড়ায় পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন ঘিরে তুলকালাম কাণ্ড। ফুরফুরা পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠন ঘিরে বৃহস্পতিবার ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। আইএসএফ ও তৃণমূলের মধ্যে সংঘর্ষের অভিযোগ উঠেছে। উঠছে বোমাবাজির অভিযোগ। পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটবৃষ্টির অভিযোগও উঠেছে। আর এই তপ্ত পরিস্থিতির মধ্যেই পুলিশের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন আইএসএফ বিধায়ক নওশাদ সিদ্দিকী। বচসার সময়ে এক পুলিশকর্মীকে ‘তুই’ বলে সম্বোধন করতে দেখা যায় নওশাদকে। তা নিয়ে বচসা আরও তীব্র হয়। এক পুলিশকর্মীর দিকে আঙুল উঁচিয়ে নওশাদকে বলতে শোনা যায়, ‘আপনার বাঁদরামি আমি ছুটিয়ে ফেলব।’ পাল্টা পুলিশকর্মীও প্রতিবাদ করে বলছেন, ‘বাঁদরামি কী হয় দেখা যাবে। আপনাকে তুই করে বলার অধিকার কে দিয়েছে?’

 

 

 

 

 

বেলা যত বাড়ে, তত তপ্ত হয় পরিস্থিতি। উত্তেজনা সামলাতে পুলিশ আসে ঘটনাস্থলে। বিশাল পুলিশ বাহিনী এলাকায় এসে অশান্তির সঙ্গে যুক্তদের এলাকা থেকে হঠিয়ে দেওয়া হয়। কিন্তু এরই মধ্যে আরও একটি ছবি ভাইরাল হয়ে যায়। তাতে দেখা যায়, এক পুলিশকর্মী আইএসএফ নেতা নওশাদ সিদ্দিকীর বাড়ির দিকে ঢিল ছুড়ছেন। যদিও সেই ভিডিয়োর সত্যতা যাচাই করেনি টিভি নাইন বাংলা। আর এই নিয়েই নওশাদের সঙ্গে পুলিশের বচসা শুরু হয়ে যায়। পুলিশের দাবি, ঢিল ছোড়া হয়নি। অন্যদিকে নওশাদও তাঁর অভিযোগে অনঢ়। তাঁর বাড়িতে ইট ছুঁড়ে জানলার কাঁচ ভেঙে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ বিধায়কের।

 

 

 

আরও পড়ুন –   ভাঙড়ে বসছে সিসিটিভি ক্যামেরা, কলকাতা পুলিশের আওতায় নিয়ে আসার তোড়জোড় শুরু

 

 

 

 

কিন্তু কেন হঠাৎ মেজাজ হারালেন নওশাদ? বৃহস্পতিবার ফুরফুরা পঞ্চায়েতের বোর্ড গঠনের কথা। সেখানে ২৯টি আসন রয়েছে। তার মধ্যে সিংহভাগ আসনই গিয়েছে তৃণমূলের দখলে। ২৯টির মধ্যে ২৪টি আসন পেয়েছে তৃণমূল। বাম-আইএসএফ মিলিতভাবে পেয়েছে পাঁচটি আসন। কিন্তু ভোটের পরে এলাকায় ব্যালট পেপার উদ্ধারের ঘটনায় জাঙ্গিপাড়ার বিডিও-কে তলব করা হয়েছিল। সেই মামলা এখনও আদালতে বিচারাধীন। এরই মধ্যে এদিন তৃণমূল বোর্ড গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু সকাল থেকেই ব্যাপক উত্তেজনা এলাকায়। পঞ্চায়েত অফিসে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়, যাতে শাসক দলের জয়ী প্রার্থীরা বোর্ড গঠন না করতে পারে।