বৈঠকে বালুর মন্ত্রিত্ব নিয়ে কথা হল না

নিয়ম মাফিক তার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিককে নিয়ে যাওয়া হল কমান্ড হাসপাতালে

রেশন বণ্টন দূর্নীতি মামলায় ইডির হেফাজতে প্রাক্তন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। জ্যোতিপ্রিয় (বালু) মল্লিকের মন্ত্রিত্ব থাকবে কি না, তা নিয়ে গত কয়েক দিন ধরেই বিভিন্ন মহলে আলোচনা চলছিল। জল্পনা ছিল, বুধবার রাজ্য মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ সংক্রান্ত কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও হতে পারে। কিন্তু বালুর মন্ত্রিত্ব নিয়ে কোনও কথাই হল না সেখানে। অন্তত তেমনটাই খবর প্রশাসনিক সূত্রে। তবে বালুর অনুপস্থিতিতে তাঁর জেলা উত্তর ২৪ পরগনায় সংগঠন কী ভাবে সামলানো হবে, তা নিয়ে দলে কিছু সিদ্ধান্ত হয়েছে। দলীয় সূত্রের দাবি, জেলার অন্য মন্ত্রীদের সেই সংগঠন দেখার নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

গত ২৭ অক্টোবর রেশন বণ্টন দুর্নীতি মামলায় গ্রেফতার হয়েছিলেন জ্যোতিপ্রিয়। ধৃত বনমন্ত্রী বর্তমানে ইডি হেফাজতে রয়েছেন। আগামী ১৩ নভেম্বর তাঁকে আবার কলকাতার ব্যাঙ্কশাল আদালতে হাজির করানোর কথা কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার। তার আগে বুধবারের মন্ত্রিসভার সভার বৈঠকে বালুকে নিয়ে আলোচনা হতে পারে বলেই মনে করা হচ্ছিল। কারণ, নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় গ্রেফতার হওয়ার পরে পার্থ চট্টোপাধ্যায়কেও তাঁর পুরনো দফতরে কিছু দিন রেখে দেওয়া হয়েছিল। দলের বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল সিবিআইয়ের হাতে গ্রেফতারের পরেও সেই নীতির ব্যতিক্রম হয়নি। বরং দল যে অনুব্রতের পাশে রয়েছে, তা বোঝাতে সুদীর্ঘ কাল ওই পদেই বহাল রাখা হয়েছিল তাঁকে। এখন জ্যোতিপ্রিয়ের ক্ষেত্রেও দল সেই নীতি নেয় কি না, নজর সে দিকেই ছিল।

আরও পড়ুন: ফলক বিতর্কের মাঝেই মেয়াদ শেষ বিশ্বভারতীর উপাচার্যের

সূত্রের দাবি, মন্ত্রিসভায় বিষয়টি উত্থাপিতই হয়নি। যার অর্থ, বালুকে আপাতত মন্ত্রিত্ব থেকে সরানো হচ্ছে না। বনমন্ত্রী পদেই থাকছেন জ্যোতিপ্রিয়। তবে বন দফতর সূত্রে খবর, পূর্ণমন্ত্রীর অনুপস্থিতিতে প্রতিমন্ত্রী বিরবাহা হাঁসদাকেই বন দফতর দেখতে বলা হয়েছে। প্রশাসনিক এবং দলীয় সূত্রের দাবি, বন দফতরের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে বিরবাহা কাজে তিনি যে অখুশি নন, নানা সময়ে তার আভাস মিলেছে মুখ্যমন্ত্রীর কথায়। বিরবাহার স্বচ্ছ ভাবমূর্তি এবং অমায়িক ব্যবহারে শুধু দলীয় নেতৃত্ব নয়, বনকর্তাদের অধিকাংশই যে সন্তুষ্ট, তা-ও জানেন মুখ্যমন্ত্রী। প্রশাসনিক কজেও তাঁর দক্ষতা রয়েছে বলে মনে করেন বনকর্তাদের অনেকেই। সেই সঙ্গে তিনি জনজাতি শ্রেণির প্রতিনিধিও। দলের একটি অংশ মনে করছে, তাঁকে বাড়তি দায়িত্ব দিলে জনজাতিদের বার্তা দেওয়ারও একটা সুযোগ থাকছে দলের।

তৃণমূল সূত্রে খবর, বালুর জেলা সাংগঠনিক বিষয় নিয়েও কিছু সিদ্ধান্ত হয়েছে দলে। ওই জেলায় অন্য যাঁরা মন্ত্রী— সেচমন্ত্রী পার্থ ভৌমিক এবং খাদ্যমন্ত্রী রথীন ঘোষদের বলা হয়েছে সংগঠনের বাড়তি গুরুত্ব দিতে। যদিও জেলার নেতাদের একাংশের দাবি, এক সময়ে জেলা জুড়ে বালুর রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড চোখে পড়ার মতো ছিল। কিন্তু বিধানসভা নির্বাচনের পর থেকে তাঁকে তাঁর বিধানসভা কেন্দ্রের বাইরে খুব বেশি দেখা যেত না। সদ্য সমাপ্ত পঞ্চায়েত ভোটের প্রচারেও সক্রিয় ভাবে দেখা যায়নি। বরং ভোটের আগে বাগদা-গাইঘাটায় এসে জনসভার মঞ্চে জ্যোতিপ্রিয় কার্যত কোনও বক্তৃতা না করে ব্রাত্য বসু, তাপস রায়দের জায়গা করে দিয়েছিলেন।

শুধু পঞ্চায়েত ভোটের প্রচারেই নয়, গত বেশ কয়েক মাস ধরেই উত্তর ২৪ পরগনার জেলা রাজনীতিতে জ্যোতিপ্রিয়কে কিছুটা নিস্প্রভ মনে হচ্ছিল জেলায় তৃণমূলেরই একাংশের। তাঁদের দাবি, এই সময়ে বরং আরও কিছু নেতাকে সক্রিয় হতে দেখা যাচ্ছিল। তাঁদের মধ্যে আছেন নৈহাটির বিধায়ক পার্থ, জেলা পরিষদের সভাধিপতি নারায়ণ গোস্বামী, তৃণমূলের বনগাঁ সাংগঠনিক জেলার সভাপতি বিশ্বজিৎ দাস, বিধায়ক তাপস রায়, মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য, ব্রাত্য বসুরা। বিশেষ করে পার্থ, নারায়ণ, বিশ্বজিতের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড ইদানীং বেড়েছে অনেকটাই। এই তালিকার সকলেই দলের অন্দরে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ বলেও পরিচিত।

https://g.co/kgs/azjgXc

বৈঠকে বালুর মন্ত্রিত্ব নিয়ে কথা হল না