দিল্লিতে দোস্তি হবে, এ রাজ্যে কুস্তি চলবে, বললেন বাম নেতা অশোক ভট্টাচার্য

দিল্লিতে দোস্তি হবে, এ রাজ্যে কুস্তি চলবে, বললেন বাম নেতা অশোক ভট্টাচার্য। ‘দিল্লিতে দোস্তি, এ রাজ্যে কুস্তি?’ বিরোধীদের এই প্রশ্নই এখন যেন কুড়ে-কুড়ে খাচ্ছে রাজ্যের বামেদের। শুক্রবার পটনায় বিজেপি বিরোধী বৈঠকে একই মঞ্চে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেমন ছিলেন, ঠিক তেমনই উপস্থিত ছিলেন সিপিএম-এর সাধারণ সম্পাদক সিতারাম ইয়েচুরি। এ রাজ্যে যখন লাগাতার বাম নেতারা তৃণমূলের দুর্নীতির কারচুপি, ভোটে হিংসার মতো গুচ্ছ-গুচ্ছ অভিযোগ তুলছেন, সেখানে লাল শিবিরের আদতে কী অবস্থান রয়েছে, একপ্রকার ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে বলে মত বিরোধীদের।

 

 

 

 

 

 

গত বিধানসভা নির্বাচনের সময় ‘নো ভোট টু বিজেপি’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে ব্যাপক প্রচার চালায় লাল শিবির। ব্যাপক জনপ্রিয়তাও পায়। বলা বাহুল্য বিধানসভা ভোটে হারও হয় পদ্মশিবিরের। এ দিকে, এ রাজ্যে আবার সেই বিজেপি-র সঙ্গে সমবায় নির্বাচনে বিভিন্ন জেলায় জোট করতে দেখা যায় বামেদের। ফলে কাস্তে হাতুড়ি তারার যে রাজনৈতিক অবস্থান এখনও স্পষ্ট নয় সেই কথাই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

 

 

 

 

 

 

যদিও, নিজেদের অবস্থান নিয়ে কোনও জটিলতাই দেখতে পাচ্ছেন না বাম নেতা অশোক ভট্টাচার্য। তিনি সাফ বলেছেন, ‘বিজেপি বিরোধী মিটিং তো প্রকাশ্যেই করেছি। তার মানে এই নয় এ রাজ্যে তৃণমূলের সঙ্গে কোনও লড়াই নেই।’ প্রবীণ বাম নেতার কড়া জবাব, “এ রাজ্যের ক্ষেত্রে আমরা বিজেপি-রও যেমন বিরুদ্ধে তৃণমূলেরও বিরুদ্ধে।” দিল্লিতে লোকসভা ভোটে মমতা সঙ্গে জোটে গেলেও পঞ্চায়েত ভোটে যে এক ইঞ্চিও জমি তৃণমূলকে বাম ছাড়বে না তাও স্পষ্ট করলেন অশোক। বললেন, “তৃণমূল বা বিজেপি কোনও লড়াইয়ে ঘাটতি হবে না। আমরা হেরেছি। তবে দুই দলের বিরুদ্ধেই লড়াই করেছি।”

 

 

আরও পড়ুন –   প্রেমে রাশ টানতে চাইছে প্রেসিডেন্সি কর্তৃপক্ষ , প্রেসিডেন্সি বিতর্কে কি বলছেন মদন…

 

 

তবে বাম নেতা যাই বলুন রাজনৈতিক মহলের প্রশ্ন তাহলে কি ক্ষমতা দখলের জন্য সুবিধাবাদী রাজনীতি করছে বামেরা? পঞ্চায়েত ভোটের জন্য শাসকদলের বিরুদ্ধে যেখানে গুচ্ছ-গুচ্ছ হিংসার অভিযোগ তুলছে তারা নিত্যদিন, সেখানে কীভাবে সেই তৃণমূল সুপ্রিমোর সঙ্গে বৈঠক করছেন?