আরডিএক্স বোঝাই ট্যাঙ্কার, গোয়া যাচ্ছে দুই পাকিস্তানি, বিস্ফোরক ফোন পেতেই তদন্তে মুম্বই পুলিশ

আরডিএক্স বোঝাই ট্যাঙ্কার, গোয়া যাচ্ছে দুই পাকিস্তানি, বিস্ফোরক ফোন পেতেই তদন্তে মুম্বই পুলিশ। মুম্বই পুলিশ কন্ট্রোল রুমে ফোন করে বিস্ফোরক দাবি। সঙ্গে সঙ্গে তদন্তে নামল পুলিশ। আরডিএক্স বোঝাই একটি ট্যাঙ্কার নিয়ে মুম্বই থেকে গোয়ায় যাচ্ছে দুই পাকিস্তানি নাগরিক। রবিবার (২৩ জুলাই), এক বিস্ফোরক ফোনকল এল মুম্বই পুলিশ কন্ট্রোল রুমে। ফোনকলটি যিনি করেছেন, তিনি নিজেকে ‘পান্ডে’ বলে পরিচয় দিয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। তিনি দাবি করেন, গুজরাট থেকে গোয়ার উদ্দেশে রওনা দিয়েছে ট্যাঙ্কারটি। ওই ব্যক্তির দাবির সত্যতা যাচাইয়ের জন্য এই বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। ওই এলাকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে মুম্বই পুলিশ। প্রাথমিকভাবে এটি একটি ভুয়ো ফোনকল বলেই মনে করছে পুলিশ। তবে, তাও কোনও ঝুঁকি নিচ্ছে না তারা। পত্রদেবী চেকপোস্টে নাকা চেকিং-এর ব্যবস্থা করা হয়েছে। বাইরে থেকে গোয়ায় আসা সমস্ত যানবাহন পরীক্ষা করা হচ্ছে। পুলিশ জানিয়েছে, তদন্ত আরও এগোলে এই ঘটনার বিষয়ে আরও তথ্য জানানো হবে।

 

 

 

 

 

 

 

এক অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তি জানিয়েছিল, শহরের এক নির্দিষ্ট স্থানে প্রচুর কার্তুজ এবং একে-৪৭ মজুত করা হয়েছে। পরে, মুম্বই পুলিশ ওই ব্যক্তির অনুসন্ধান করছে। ওরলি থানায় এই বিষয়ে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। তার আগে, ১২ জুলাই আরও একটি হুমকি ফোনকল এসেছিল। পাকিস্তানি নাগরিক সীমা হায়দারকে দেশে না ফিরিয়ে দিলে, মুম্বই শহরে ২৬/১১-র হামলার ধাঁচে হামলা করা হবে বলে, উর্দু ভাষায় সতর্ক করা হয়েছিল। সেই হামলার জন্য উত্তর প্রদেশ সরকার দায়ী থাকবে বলে জানানো হয়েছিল। এই হুমকি ফোনকলের প্রেক্ষিতে এক অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তির বিরুদ্ধে একটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে।

 

 

 

 

 

আরও পড়ুন –  এবার তদন্তকারীদের নজরে বেআইনিভাবে চাকরি পাওয়া শিক্ষকরা? প্রাথমিক শিক্ষকদের বয়ান রেকর্ড CBI-এর,

 

 

 

 

গত মঙ্গলবারই আরও একটি হুমকি ফোনকল এসেছিল মুম্বই পুলিশের কাছে। শহরে বোমা রাখা হয়েছে বলে পুলিশকে জানানো হয়েছিল। উত্তর প্রদেশের যোগী আদিত্যনাথ সরকার এবং কেন্দ্রের মোদী সরকারকে নিশানা করা হয়েছিল ওই হুমকি ফোনকলে।